বিশেষ বিজ্ঞপ্তিঃ
আই নিউজ বাংলায় আপনাকে স্বাগতম। দেশের প্রতিটি জেলা এবং উপজেলায় আমাদের সংবাদ দ্বাতা নিয়োগ চলছে। একজন সংবাদ দাতা হিসেবে যোগদান করার জন্য আজই যোগাযোগ করুন।
সর্বশেষ সংবাদ :
চেতনায় ফুলের নাম ২১ ফুলের নাম ৭১ ফুলের নাম স্বাধীনতা রাজধানী টোকিওতে বাংলাদেশ দূতাবাস কর্তৃক যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জাপান শাখা কর্তৃক যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান মাতৃভাষা দিবস পালিত। নোয়াখালীর সেনবাগে গৃহবধূর আত্মহত্যা,শ্বশুর ও শাশুড়ী আটক! সেনবাগে বৈদেশিক কর্মসংস্থানের জন্য দক্ষতা ও সচেতনতা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত শ্রীপুরের লক্ষ মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় দাফন সম্পুর্ণ হলো বীর মুক্তিযোদ্ধা রহমত আলীর টালিউডের জনপ্রিয় অভিনেতা তাপস পাল আর নেই মাতৃভাষা হিসেবে বাংলা বিশ্বের পঞ্চম অবস্থানে জাপান আওয়ামী লীগ শাখা কর্তৃক নবনির্বাচিত কমিটির পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত নোয়াখালীতে অগ্নিকান্ডে তিনটি ঘর ভস্মীভূত,ক্ষতি ১০ লক্ষাধিক!!
ঘুরে আসুন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিস্থল টুঙ্গিপাড়া থেকে।

ঘুরে আসুন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিস্থল টুঙ্গিপাড়া থেকে।

শেয়ার করুন

১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় জন্মেছিলেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে শেখ মুজিবুর রহমান কে হত্যার পর গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায় মা-বাবার কবরের পাশে তাকে সমাহিত কর হয় ।

গোপালগঞ্জ জেলা শহর থেকে টুঙ্গিপাড়া দূরত্ব ১৯ কিলোমিটার। পথে যেতে যেতে চোখে পড়বে বিস্তৃন্ন সবুজ ফসলের মাঠ ,ধান ক্ষেত ,দখিনা হাওয়ায় দোলানো কাশফুলের বন ,বেকে চলা নদী ,পাল তোলা নৌকা আর ঝিলে বকের সারি । পর্যটকদের রাত্রি যাপনের জন্য গোপালগঞ্জ শহরে আছে আবাসিক হোটেল । গণপূর্ত বিভাগের তত্ত্বাবধানে ৩৮.৩০ একর জমিতে নির্মিত হয় বঙ্গবন্ধুর সমাধি সম্মিলিত কমপ্লেক্স ।

সমাধী সৌধের সাইন বোর্ড

এই সমাধিসৌধের পাশেই আছে বঙ্গবন্ধুর পারিবারিক কবরস্থান । সিরামিক ইট আর সাদা-কালো মার্বেল পাথর দিয়ে নির্মিত এ কমপ্লেক্সের ভিতরে আছে একটি লাইব্রেরী ও জাদুঘর,গবেষণাকেন্দ্র, প্রদর্শনী কেন্দ্র, উন্মুক্ত মঞ্চ, পাবলিক প্লাজা, প্রশাসনিক ভবন, ক্যাফেটেরিয়া, বকুলতলা চত্বর ও স্যুভেনির কর্নার। সমাধি কমপ্লেক্সে প্রবেশের জন্য কোন টাকা লাগে না ।

বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার লেখা বই সহ আছে প্রায় ছয় হাজার বই । আছে বঙ্গবন্ধু ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নানা স্মৃতি বিজড়িত স্কুল পাঠশালা সহ খেলের মাঠ ।প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সমাধিসৌধ খোলা থাকে।

এখানেই চীর নিদ্রায় শায়িত আছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান

লাইব্রেরী খোলা থাকে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। বঙ্গবন্ধু সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সের পাশেই টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার উদ্যোগে নির্মাণ করা হয়েছে ‘শেখ রাসেল শিশুপার্ক’। ঢাকা থেকে সারসরি বাসে টুঙ্গিপাড়া যাওয়া যায়। বাসের রয়েছে দুটি রুট। একটি গাবতলী থেকে পাটুরিয়া হয়ে, অপরটি গুলিস্তান থেকে মাওয়া ঘাট পাড় হয়ে। গাবতলী থেকে টুঙ্গিপাড়ার দূরত্ব ২৪০ কিলোমিটার।

গুলিস্তান থেকে টুঙ্গিপাড়ার দূরত্ব ১৬০ কিলোমিটার। গোল্ডেন লাইন, সেবা গ্রিন লাইন, কমফোর্ট লাইন নামের বাসে টুঙ্গিপাড়া যেতে সময় লাগে সাড়ে পাঁচ থেকে ছয় ঘণ্টা। প্রতি আধা ঘণ্টা পরপর বাস পাওয়া যায়। ভাড়া জনপ্রতি ৩৫০-৪৫০ টাকা । টুঙ্গিপাড়া পৌরসভার মাননীয় মেয়র শেখ আহমেদ হোসেন মির্জা টুঙ্গিপাড়া পৌরসভা কে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের কাছে আরে আকর্ষণীয় করার জন্য রাস্তা ঘাট ব্রিজ কালভার্ট বাস স্ট্যান্ড পর্যটকদের থাকা খাওয়ার শুবিধা সহ আধুনিক হোটেল ,শিশুদের বিনোদনের জন্য পার্ক, গাজী পার্কিং সুবিধা সহ ব্যপক উন্নয়ন প্রকল্প হাতে নিয়েছ্ন ।এবং তা বাস্তবায়ন করার জন্য দিনরাত নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

শেয়ার করুন


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © https://inewsbangla.com
Design BY NewsTheme