পত্রিকা পাতায় চোখ দিলেই সারা দেশে বর্তমনা দুর্যোগের মুহুর্তে ত্রান নিয়ে নানান অভিযোগ অনিয়মের কথা দেখা যায়। প্রধানমন্ত্রীর  নির্দেশে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক প্রতিটি ইউনিয়নের ত্রান বিতরন স্বচ্চ এবং সুষ্ঠ করা লক্ষে একজন করে ট্যাগ অফিসার নিয়োগ দেয়া হয়।

লক্ষ্মীপুর জেলার সদর উপজেলা ৬ নং বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নে এ মহা দুর্যোগে যখন ত্রান বিতরন নিয়ে নানা অনিয়ম, স্বেচ্ছাচারীতা ও সমন্বয়হীনতা দেখা দেয়, প্রকৃত দরিদ্র ও কর্মহীন জনগন যখন ত্রান প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে, ঠিক তখনি অত্র ইউনিয়নে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষে ট্যাগ অফিসার ও ইউনিয়ন ত্রান উপ-কমিটির আহবায়ক হিসেবে এম.সোলায়মান, দুলাল, উপজেলা সমন্বয়কারী ও শাখা ব্যবস্থাপক, আমার বাড়ি আমার খামার ও পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, সদর, লক্ষ্মীপুর কে নিয়োগ দেয়া হয়।

দায়িত্ব গ্রহনের পর পরই তিনি কেনো রূপ কাল বিলম্ব না করে ইউপি চেয়ারম্যান, মেম্বারগণ ও স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গদের নিয়ে মতবিনময় ও সরকারী নীতিমালার বিষয়ে সবাইকে আন্তরিকভাবে অবহিত করেন।

এবং করোনা আক্রান্তের ঝুঁকি থাকা সত্বেও দিন রাত কাজ করে প্রতিটি ওয়ার্ডে নিজে সরেজমিন উপস্থিত থেকে সরকারী খাদ্য সঠিক পরিমাপ, প্যাকেটিং ও ওয়ার্ড ভিত্তিক বিতরণের জন্য ওয়ার্ড উপকমিটির নিকট হস্তান্তর করেন।

ওয়ার্ড মেম্বারগণ কর্তৃক দাখিলকৃত কর্মহীন ও দরিদ্র পরিবারের অগ্রাধিকার তালিকা যাছাই-বাছাই করার জন্য ওয়ার্ড উপ-কমিটিকে নির্দেশনা দেন। যে সকল ওয়ার্ডে অনিয়মের শঙ্কা রয়েছে, সে সব ওয়ার্ডে ত্রান বিতরণে নিজে সরেজমিন পরিদর্শন করেন এবং নিজে উপস্থিত থেকে বাড়ী বাড়ী গিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর উপহার  পৌছে দেন।

কোথাও কোনো অভিযোগ পেলে তাৎক্ষনিক ব্যবস্থা গ্রহন করেন এবং অভিযোগকারীর অভিযোগ অত্যান্ত বিনয়ের সহিত ধৈর্য সহকারে শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করেন। তার এই দাযিত্বশীল ভূমিকার কারনে বাঙ্গাখাঁ ইউনিয়নের ত্রান সংক্রান্ত অভিযোগ, অনিয়ম অনেকটাই কমে এসেছে। এমন একজন অফিসার পেয়ে আমরা সত্যিই গর্বিত ও আনন্দিত।

সারা দেশে যদি এভাবেই ট্যাগ অফিসার গন নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করেন তাহলে ত্রান নিয়ে সংসয় অনেকটাই কেটে যাবে।

দেশের প্রতিটি ইউনিয়নে যেনো একজন সোলায়মান স্যার পায়, সে প্রত্যশা রইলো।

Leave a reply

Please enter your comment!
Please enter your name here